রামায়ণের জন্মকথা – কবিতা

मां निषाद प्रतिष्ठां त्वमगमः शाश्वतीः समाः।

यत्क्रौंचमिथुनादेकम् अवधीः काममोहितम्॥’

mā niṣāda pratiṣṭhā tvamagamaḥ śāśvatīḥ samāḥ

yat krauñcamithunādekam avadhīḥ kāmamohitam

You will find no rest for the long years of Eternity

For you killed a bird in love and unsuspecting

কামমোহিত এক পক্ষিযুগলের এক শিকারির শরাঘাতে মৃত্যু দেখে স্নানরত ঋষি বাল্মীকি গেয়ে উঠেছিলেন এই পুণ্যশ্লোকটি। সেই থেকেই আদি কবি বাল্মীকি লেখেন অমর প্রেমগাথা রামায়ণ। অতি রমণীয় রচনা এই রামায়ণ। সাহিত্যগুণে, কাব্যগুণে বোধ হয় মহাভারতের থেকেও শ্রেয়। সেই অমরকাব্য রচনার শুরুর সেই নাটকীয় মুহুর্তটি ধরার চেষ্টা করেছি। হয়তো একটু অন্য আঙ্গিকে গল্পটিকে উপস্থাপিত করেছি।

 

নীল জলেতে পা ডুবিয়ে এক সারস আর এক সারসি

মুগ্ধ দৃষ্টি, মুগ্ধ আত্মা, ওষ্ঠে খেলে মোহন হাসি

লজ্জা চোখে সারসি শুধোয় “আমায় তুমি ভালবাসো?”

“প্রাণে মোহনবীণা বাজে যখন তুমি কাছে আসো”

সারস বলে, একটু হেসে দীর্ঘ গ্রীবা বাঁকিয়ে চেয়ে

শিরায় শিরায় ধমনীতে বিদ্যুৎ তার যায় যে ধেয়ে

 

রোদ্দুর আজ একটু নরম, গায়ে মেঘের পশম চাদর

নদীর চরে ঘাসের পরে টুপটুপে চুপ শিশির আদর

কৃষ্ণচুড়া গাছের তলে লালসোহাগি রাশি রাশি

ভিজে হাওয়ায় লাগিয়ে নেশা রাখাল দুরে বাজায় বাঁশি

 

সারস এখন আরও ঘন, প্রিয়ার নরম আঙ্গুল ছুঁয়ে

সংযম আর বাঁধন যত হঠাৎ কেমন যাচ্ছে ধুয়ে

“আজ সকালে আমার মত এমন সুখি আছে কে জন

ওই চোখেতে জীবন আমার ওই ঠোঁটেতে আমার মরণ”

 

প্রিয়তমের নিবিড় ছোঁয়ায় কাঁপছে শরীর থরথর

পায়রা গরম প্রিয়ার বুকে উঠছে তপ্ত বালু ঝড়

“সাজিয়েছি এই শরীর আমার, সহস্র যুগ, কল্প ধরে

আজ যদি এই মিস্টি ভোরে, দিই তোমাকে, নিঃস্ব করে

যখন হবো সাঁঝের তারা, রাখবে আমায় অমর করে?”

প্রেম সোহাগি সারসি কয়, প্রিয়র গলা জড়িয়ে ধরে।

“মৃত্যু থেকে আনব কালি তোর কাহিনি লিখব বলে,

তোর ছবিটা আঁকব ছন্দে, ভাসবে সবাই নয়নজলে”

 

অকস্মাৎ প্রেমিক পাখি নীরব হল চিরতরে

বিঁধেছে এক সুতীক্ষণ তীর, বুকের থেকে রক্ত ঝরে

নিষ্ঠুর এক শিকারি ব্যাধ, বাণ ছুড়েছে সুযোগ বুঝে

মুগ্ধ নয়ন প্রিয়ার পানে, সারস পাখি চক্ষু বোজে

স্বজনহারা শোকাকুলা সারসির আঁখিতে অশ্রুধারা

তপ্ত লোহা পড়ছে গলে রুদ্ধ আবেগ কথা হারা

মরনপারেও সাথ দেবে সে চিরসাথির, পাগলপারা

রক্তজলে লুটিয়ে পড়ে স্থির হল তারও চক্ষুতারা

 

কাঁদছে সকাল, কাঁদছে নদী, বিষাদ বেদন বাজছে করুণ

অশ্রুজলে ঝাপ্সা নয়ন ব্যাথিত এক সৌম্য তরুণ

দুর্দান্ত এক দস্যু ছিল কঠোর নিঠুর পাষাণ হৃদয়

প্রেমময়ের নামটি গেয়ে এখন সে হৃদি করুণাময়

নয়ন ভরে দেখছিলেন তিনি পাখি দুটির মিলনমেলা

আচম্বিতে ব্যাধের শরে সাঙ্গ হল প্রানের খেলা

গন্ড বেয়ে অশ্রু ঝরে পক্ষি দ্বয়ের মৃত্যু শোকে

গভীর ব্যাথা গান হয়ে ফোটে হঠাৎ দুটি পুণ্য শ্লোকে

 

“অসতর্ক মিথুনরত প্রেমিকবরের প্রাণটি চুরি করে

অয়ি আর্য, তুমি শান্তি পাবে না অনন্তকাল ধরে”

 

দীর্ঘচঞ্চুর আত্মা যেন প্রবেশ করেছে প্রাণের পরে

কথা দিয়েছিল সে অমর কথা লিখবে প্রিয়তমার তরে

মৃত্যুপারের মসিলেখনিতে লিখবে সে তার প্রিয়ার কথা

তাই বুঝি সে নীথর পাখি হয়েছে ঋষির মর্মব্যাথা

 

ঋষি ভাবেন,

“লিখব আমি প্রেমকাহিনি অতল, অমর শেষ-না-হওয়া

যে প্রেমে আপন বিলিয়ে দেওয়া, কিছু না নিয়ে শুধুই দেওয়া

আমি আদি কবি, আমি অশ্রুত, আমি লিখব হাজার বছর ধরে

অসমাপ্ত এক প্রেমগাথা, রাখব তোদের অমর করে”

অবশিষ্ট আমি – কবিতা

বন্ধুরা তোমাদের সাথে অনেকদিন কথা হয়নি। তাই ভাবলাম আমার জন্মদিনে একটা পোষ্ট তো দেওয়া প্রয়োজন। প্রতি জন্মদিনেই আমি একটু self-reflect করি যে মানুষ হিসেবে আর একটা বছরে ঠিক কতটা উত্তীর্ণ হলাম। সেই ভাবনা থেকেই এই লেখাটা।

 

আমার তো এতটুকু আমি

বাকি ছেড়ে এসেছি এ পথে

কিছু রাখা আমার শহরে

কিছু রাখা মরু পর্বতে

 

কিছু রাখা মায়ের আঁচলে

কিছু রাখা পূজোর ছুটিতে

স্কুলের মাঠেতে রাখা কিছু

কিছু রাখা স্মৃতির মুঠিতে

 

আমার যা অবশিষ্ট আমি

মুঠো করা জল যেন সে-ও

প্রতিক্ষণে গলে পড়ে কিছু

রোজ হারায় আমার পাথেয়

 

এখন তো মিথ্যের মুখোশে

আমারই সে ছায়া বয়ে চলা

আজ সব শব্দ ধার করা

কথা বলা নয়, হরবোলা

 

আমার আজ যাপন নয়

নিখাদ সুপটু অভিনয়

অজস্র মিথ্যের আড়ালে

দিনগত শুধু পাপক্ষয়

 

আজ যদি নিষ্ঠুর হাতে

মনটাকে করি ব্যাবচ্ছেদ

দেখতে পাব, জানি দেখতে পাব

ঈর্ষা, গ্লানি, মিথ্যে আর ক্লেদ

প্রবাস যন্ত্রণা – কবিতা

তোমারও কি প্রবাস যন্ত্রণা?

তোমারও কি মাঝে মাঝে

মন লাগে না কোনো কাজে

তাল কেটে যায় সুর লাগে না বীণায়?

 

তোমারও কি একলা বিকেল বেলায়

বাড়ির গলি মনে পড়ে

সামান্য মন কেমন করে

পসরা সাজিয়ে ভাসো স্মৃতির ভেলায়?

 

তোমারও কি ভোর বেলাতে কোনো

ঘুম চোখে ঘুম জড়িয়ে থাকে

হঠাৎ মনে পরে মা’কে

বিষণ্ন বিণ কোথায় বাজে যেন?

তোকে চাই না – কবিতা

একলা পথে চলব তোকে চাই না

                একলা কথা বলবে মন আয়না

তোর চোখে চোখ রেখে সারা রাতটা

                জাগবো না আর, দেখব না ঐ রূপটান।

 

তোর কথা আর ভাববো না। বৃষ্টির গান

                    আনবে না আর মনে তোর ঐ মুখখান

চাঁদ সোহাগি সন্ধ্যা, জ্যোৎস্নার জল

                     তোর স্মৃতিতে করবে না মন চঞ্চল

বর্ষামুখর সন্ধে শহর। সিক্ত।

                    তোর বিহনে চলছে কেমন। বেশ তো।

তোর ভেজা চুল আর ভেজা ঠোঁট চাউনি

                    থাক তোলা থাক। আজ শহর হোক মৌনী

 

আজকে শুধু চাঁদ হারাবে জ্যোৎস্না

                     তোর বিহনে বিয়োগ বিধুর রোশনাই

অশ্রুরা সব চোখের কোনে বন্দি

                     ভুলবো বলে ভুল করে আজ

                                           তোর ছবিতেই রঙ দিই

——

ভাল লাগলে এই কবিতাটা পড়বেন।

https://jojatirjhuli.net/2017/02/16/aholyake/

একলা পথে চলব তোকে চাই নাClick To Tweet
যযাতির ঝুলি টাটকা তাজা
ইমেলে পেলে ভারি মজা

শ্যালক – ছড়া

আঠেরোর কুঁড়ে শীত কেমন কাটছে বন্ধুরা?  বছরটা কি ধরণের লেখা দিয়ে শুরু করব ভাবতে ভাবতে ঠিক করলাম একটা লঘু লেখা দিয়ে তরল পাঠক আর প্রিয়দর্শিনী পাঠিকাদের মনোরঞ্জন করার চেষ্টা করে দেখি। কবিতা মানেই আজকাল কবিরা সিরিয়াস, আবেগঘন লেখা বোঝে। যযাতির ঝুলি থেকেও গুরু গম্ভীর কবিতা বেরোয় মাঝে মাঝে। আপনারা পড়েছেন এবং অনেকে পছন্দও করেছেন বহুবার। কিন্তু হালকা, ফুল অফ হিউমার ছড়া সাহিত্যজগৎ থেকে হারিয়ে যাবে এটা যযাতির একান্ত অপছন্দ। তাই বছরের শুরুতে একটা হাসির ছড়া। ছন্দ নিয়ে একটু মুন্সিয়ানা করারও চেষ্টা করেছি। সুধী পাঠক পাঠিকারা টের পাবেন আশা করি। ছড়াটার নাম “শ্যালক”।

*********

সেন সাগ্নিক

         রেগে অগ্নি  – 

বলল ডেকে “ভাইরে অনীক

বিয়ে করে আমি তোর ভগ্নী

এত ভুগেছি যা আগে ভুগি নি

জ্বলে পুড়ে ছাই। অত্যাধুনিক।

বাপধন কোন রাগে বল দিক

গছালি কেন এই শোপিসটি ঠিক?

রেগে গেলে যেন খেপা কাপালিক  –

বলে মুখ করে অস্বাভাবিক

‘তুই মর, তোর কান কাগে নিক’।

পাকা ধানে মই দিয়ে নিই তো। পিক

ফেলি নিই তো তোর জামায়। শালিক

চড়াইনি তোর বাসায়। মানিক

কেন হাসছিস তুই ফিক ফিক?”

 

আমি বললাম “শালা ড্যাশ ড্যাশ

এবার কেমনটা দিয়েছি বাঁশ!

আমি শ্রী অনীক। আমায় রাগাস?

মনে পড়ে? তেরো, জানুয়ারী মাস

পা মাড়িয়েছি সেই ভীড় বাস

দিয়েছিলি গালি ‘শালা বদমাশ’

বললাম আমি – ভাল যদি চাস

ফিরিয়ে নে এই গালি। বারমাস

পারবি না সামলাতে ঐ বাঁশ।

শোনালি কথা তাও টকাস্‌ টকাস্‌।

প্রেম করে বিয়ে করেছিলি। ফাঁস

পরিয়ে দিয়েছি সেই থেকে ব্যাস্।

এখন কেমন রোজ বাঁশ খাস?”

 

আহা কি কাব্যি, আহা কি সমাস

সবাই বলো সাবাস সাবাস…

বন-পাহাড়ি

কদিন আগেই বন্ধুবান্ধব মিলে গেছিলাম Smokey Mountain। রূপসী ধূম্র পাহাড়-এর এক চন্দ্রালোকিত সন্ধ্যায় বসে লিখেছিলাম।

********
আজ আকাশে আঁকা তারার আলপনা
আজকে রাতে হোক কবিতা। গল্প না।
পাহাড়-পথে পড়ছে ঝরে জোছনা জল
আজ এ রাতে আমার সাথে থাকবি বল!
গাছের পাতায় কুয়াশাদের চুপ সোহাগ
জড়িয়ে – যেন উপগতার পূর্বরাগ।
আজকে নিবিড় আশ্রয় তোর নরম বুক
কথারা আজ ঠোঁটের নিচে চুপ থাকুক।
আজকে শরীর খুঁজুক শরীর। উষ্ণতা।
দীর্ণ হৃদয় খুঁজে ফিরুক ক্লিন্নতা।
তোর ঠোঁটের আর তোর ঐ চোখের মুগ্ধতা
বন-পাহাড়ি সব্‌জে, অবুঝ বন্যতায়
আজকে খুঁজে ফিরুক সুজন, অলীক সুখ
তোর গহীনে ঠাঁই দে আমায়। আগন্তুক।

মেঘ প্রতিশ্রুতি

শিকাগোতে আজ টুপ টুপ টুপ বৃষ্টি সকাল থেকে। তাই এই কবিতাটা আমার প্রিয় পাঠকদের জন্য। যারা তেমন পড়ার সময় পান না, তাদের কথা ভেবে কবিতাটা আবৃত্তিও করে দিলাম। সোজা নিচে গেলে লিঙ্কটা পাবেন। যারা পড়তে ভালবাসেন, তারাও আবৃত্তিটা শুনতে পারেন। আশা করি ভালোই লাগবে।

এক শ্রাবনী অন্ধকারে

কৃষ্ণ কালো মেঘের ঘটা আকাশ পরে – 

নির্নিমেষে চেয়ে থেকে প্রশ্ন করি, শুধাই তারে

ঘুরে বেড়াও উড়ে বেড়াও কিসের তরে?

আকাশ জুড়ে,

রঙ মাখা ঐ মেঘ চাদরে

মুখ ডুবিয়ে মন্দ্র স্বরে

কাকে ডাকো?

কোন সে চাতক চুপিসারে

তোমায় পাওয়ার লোভে চলে অভিসারে?

কোন সে আলো মুখ লুকিয়ে চুপ শরীরে

তোমায় ছুঁলো, মৃত্যু নিল শরীর জুড়ে?

কোন সে কবি এক দুপুরে

তোমায় নিয়ে লিখবে বলে

সারা বেলা রইলো বসে কলম ধরে…

মেঝের পরে রইলো পড়ে

ছিন্ন কিছু শব্দ কোন এক শেষ না হওয়া কণ্ঠহারে।

কোন এক মাঝি বৈঠা ধরে

পথ হারাল তোমার খোঁজে

সুর বাঁধলো বাউল সুরে?

জানালা পথে এক টুকরো তোমায় পেয়ে

কোন সে জনপদবধু রইলো পরে ঠোঁট কামড়ে?

শিয়াল কিছু আঁচড়ে কামড়ে

আশ্লেষে প্রান ভরিয়ে দিল। গলির মোড়ে

কোন সে অপু তোমায় দেখে বারে বারে

খেলা ছেড়ে রইলো চেয়ে

রইলো চেয়ে ঐ সুদূরে?

কোন সে গৃহবধু সেদিন দরজা ধরে

একলাটি প্রতীক্ষা করে

সেই সে জনের

যে জন কোথায় হারিয়ে গেছে বন পাহাড়ে?

কোন সে ডাহুক চুপিসারে

তোমার সাথে ভিজবে বলে দিগবলয়ের কাছে ওড়ে?

 

মেঘ বললে,

আমি আমার ভেলায় নিয়ে ফিরি আশা

ফেরি করি বৃস্টি-ভেজা-ভালবাসা।

অনাগত এক স্বপ্নমুলুক, সুলুক দিতে আমার আসা।

ভালবাসি বলছে শুধু, বলছে আমার মন্দ্র ভাষা।

ভালবাসার জোয়ারজলে ভাসিয়ে দেব সব নিরাশা –

ভিজিয়ে দেব গৃহবধূর বুকের আঁচল, সব তিয়াশা।

ঝড় তুলব সর্বনাশা –

সেই ঝড়েতে বিলীন হবে শীর্ণ শিথিল সব কুয়াশা।

নতুন জগৎ জন্ম নেবে, নতুন দিশা

আসবে সাথে, আসবে আবার নতুন করে ভালবাসা।।

 

সুখ

এইখানে আজ আমি থাকি। এইখানে কাটে এই বিনিদ্র রজনী একাকি। এইখানে একান্তিকে আমার এই ভাঙ্গা মন্দির। চারিদিকে তুলেছি এক নিশ্ছিদ্র প্রাচীর। বাইরে হিংস্র উরগদের জান্তব চিৎকার। এই আঙিনাতে বসে শুনতে পাই না আর। চোখে শুধু এক স্বপ্ন লেগে থাকে – একদিন নির্জন বনবীথিকার কোনো বাঁকে ফুটবে পলাশ আর ফুটবে রক্ত কিংশুক। লাজুক পাপড়ি গুলো যেন কোনো কিশোরীর আনত চিবুক। গাছের পাতার ফাঁকে এক ফালি সোহাগি রোদ্দুর বলে যাবে “বিশ্বাসে মিলায় সুখ…..তর্কে বহুদূর।”

সন্ধে নামার প্রাক্কালে

বৈশাখী বিশীর্ণ বিকেলে

মেঘেদের মাধুকরী শেষ হলে পরে

বায়বীয় বিষণ্ণতা আকাশের চোখে লেগে থাকে

 

সন্ধে নামার প্রাক্কালে মনে হয়

পৃথিবীটা ভারি কাব্যময়

অন্তরালে ডালে ডালে শুকসারি চুপ বসে থাকে

দোয়েল চন্দনারা কোন এক বেদনসুরে গায়

পৃথিবীতে স্বপ্ন নামে, কবিতা নামে ধীর ভঙ্গিমায়

শিশির পেলব কথা জমে থাকে পথেদের বাঁকে

 

অবসান যত অঙ্ক, যত বোঝাপড়া

অবসান ছদ্মবেশ পড়া

ব্যাঙ্গমা ব্যাঙ্গমি ফিস্‌ফিসে রূপকথা বলে যায়

অন্তরে খেলা করে কোন এক গভীর অসুখ

গাছের ছায়াতে সব বিদেহীরা ভিড় করে মূক

মর্ত্য যেন জাদুমন্ত্রে মায়ালোক এক লহমায়

 

এক অদ্ভুত আলো খেলা করে গাছেদের কোলে

দীঘি-মাঠ-প্রান্তর জিনপরিদের কবলে

ঝিঁঝিঁ পোকাদের একান্ত আলাপচারিতা

নীড়ে ফেরা পাখিদের কুহু কাকলি

এক কল্পলোকের গল্প বয়ে আনে এ সকলই

অপূর্ব মায়ালোক গড়ে এই গাছ, মাটি, আঁধার আর সন্ধ্যা-স্নিগ্ধতা

ওভারশুট ডে

শোচনীয় সিচুয়েশানে শ্যামবাজারের শ্যামলা
বলল হেঁকে “আর পারিনে, এবার তোরা সামলা।
মরবি তোরা মরবি এবার, এবার পাবি অক্কা
সারা বছরের রসদ তোদের আগাস্ট মাসেই ফক্কা?

এই গ্রহ যা দিতে পারে এক বছরের খাবার
খিদে তোদের এতই যে সব আগাস্ট মাসেই সাবাড়?
তেল পোড়ানো কমাতে হবে যতই বলি তোদের
শুনবি না গরিবের কথা। দেখ ফলাফল জেদের –
এক শতাব্দীতে মানুষ ডাবল কিন্তু বলে রাখি
আটান্ন পার্সেন্ট হয়েছে মাছ আর পশু পাখি
বৃষ্টিবাদলা কমছে ক্রমেই চেঞ্জ হচ্ছে ক্লাইমেট
এ চললে ঠিক লোপ পাবে সব মানুষ, বাঁদর, প্রাইমেটস

আমিষ খাওয়া কমা, তোরা তেল পোড়ানো কমা
নয়তো আর এক শতক শেষে কাঁদবি “ছেড়ে দে মা”
বাঁচতে চাস তো কন্ট্রোল কর কার্বন এমিশান
নয়তো এ রেলগাড়ি পৌঁছবে শেষের ইস্টিশান
এই পৃথিবী বাঁচাবো আমরা – আয়নার সামনে
প্রতিজ্ঞা কর। আজ বছরের ওভারশুট ডে”

★★★

সব শুনেটুনে বলল সবাই লোকটা বোধ হয় পাগল
নয় মাওয়িস্ট নয়তো নেতা কিম্বা নিছক গাড়োল

“Living within the means of one planet is technologically possible, financially beneficial, and our only chance for a prosperous future”

We used all resources that we will be able to replenish throughout the year by August 2, this year. August 2 is the overshoot day for this year.

https://www.cnbc.com/2017/08/02/its-earth-overshoot-day-weve-used-more-resources-than-nature-can-regenerate-in-2017.html